উদ্যোক্তা কী?

উদ্যোক্তা হচ্ছে এমন একজন ব্যক্তি যিনি একটু নতুন ব্যবসা তৈরি করে, বেশিরভাগ ঝুকি গ্রহন করে এবং ব্যবসা সফল হলে বেশিরভাগ উপহার, নাম, যশ, খ্যাতি সে গ্রহন করে । একজন উদ্যোক্তাকে একজন উদ্ভাবক হিসাবে দেখা হয় । যার কাছে নতুন নতুন আইডিয়ার উৎস থাকে, নতুন পণ্যের চিন্তা থাকে, নতুন কিছু তৈরি করার আইডিয়া থাকে, সৃজনশীল মেধা থাকে ।

নতুন ব্যবসার সকল কিছু তার তৈরি করা নতুন আইডিয়ার মাধ্যমে চলে । সকল প্রকার ঝুকি তার উপরেই থাকে । যেমন আর্থিক, লস, পরিচালনা, পণ্যের বাজার চাহিদা, পণ্যের গুনগত মান সহ সকল কিছুর সব থেকে বেশি ঝুকি তার উপরেই থাকে ।

একমাত্র নতুন উদ্যোক্তারাই পারে সমাজ ও দেশের পরিবর্তন করতে ।  তারা সমাজ ও দেশের আইকন । তারাই পারে একটি জাতিকে সন্মানের স্থানে বসাতে, মানুষের জীবন কে সহজ করে দিতে, সুন্দর ভাবে বেঁচে থাকার পথ দেখাতে, নিজের দেশের নাম বিশ্বের বুকে উজ্জ্বল করে রাখতে, নিজেকে পৃথিবীর বুকে অমর করে রাখতে । পৃথিবীর রিয়েল হিরো হচ্ছেন সফল উদ্যোক্তারা ।

নতুন আইডিয়া দিয়ে নতুন ব্যবসা গড়ে তুলে নতুন কর্সংস্থান তৈরি করে বেকারত্ব দূর করার মাধ্যমে এবং বাজারে নতুন ধারনা তৈরি করার মাধ্যমে উদ্যোক্তারা দেশের অর্থনিতিতে মুল ভুমিকা পালন করে । একজন উদ্যোক্তা প্রমান করে যে জীবনে সফল হওয়ার জন্য ঝুকি গ্রহন করতে হয়, কঠোর পরিশ্রম করতে হয়, সততার সাথে প্রতিটা পথ অতিক্রম করতে হয় ।

উদ্যোক্তার সংজ্ঞাঃ-

যে ব্যক্তি সর্বচ্চ ঝুকি নিয়ে এবং সকল ঝুকি গ্রহন করে নতুন সৃজনশীল আইডিয়া দিয়ে নতুন ব্যবসা শুরু করে তাকে উদ্যোক্তা বলে ।

অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং উদ্ভাবনে উদ্যোক্তা একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ । উদ্যোক্তা উচ্চ ঝুকিপুর্ণ কাজ । তবে এটি উচ্চ সন্মানীয় হতে পারে যদি সফল হয় । কারন এটি দেশের অর্থনিতি, উন্নয়ন এবং উদ্ভাবনের কাজ করে ।

সফল উদ্যোক্তাদের থেকে উদ্যোক্তার অর্থঃ-

“নিকোলন নিকোল” কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা অ্যালটাইজ নিকোল বলেছেন –

“অনেকে উদ্যোক্তা হয়ে উঠতে আগ্রহী কিন্তু বাস্তবতা সামনে আসলে অনেকেই নিরুৎসাহিত হয়ে যায় । উদ্যোক্তা মানে উত্তেজনার অনুভূতি ছাড়িয়ে আপনার লক্ষ্যে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকা।”

নিউরোফ্লোয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও ক্রিস্টোফার ম্যালারো বলেছেন –

“উদ্যোক্তা মানেই যে নতুন কিছু করার জন্য লাফিয়ে উঠতে রাজি, নিজের চারপাশের সমস্ত কিছু ত্যাগ করে যথেষ্ট পরিশ্রম করতে রাজি, সমস্যার সমাধানের জন্য সকল ঝুকি নিতে রাজি কারন অন্য কেউ সক্ষম বা এই ইচ্ছের অধিকারী নয় ।”

নিকোল ফেইথ, 10 ক্যারেট ক্রিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা বলেছেন –

“উদ্যোক্তা হওয়ার অর্থ পরিকল্পনা এবং মূল লক্ষ থাকা । কখনও আপনার পরিকল্পনা ব্যর্থ  হলেও আপনার পরিকল্পনার বিষয় নিয়ে সাফল্যের জন্য চেষ্টা করা এবং কঠোর পরিশ্রম করা । কখনও হাল ছেড়ে দেওয়া উচিত নয় । নিজের পরিকল্পনা বা কাজের প্রতি আত্মবিশ্বাসী হওয়া ।”

এমেস স্যান্ডোভাল, মিজার ম্যাচ এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও বলেছেন –

“উদ্যোক্তা হওয়ার অর্থ আপনার নিজের তৈরির উদ্যোগে মাথা নিচু করে ডুব দেওয়া, কঠোর পরিশ্রম করা, দীর্ঘ সময় ধরে একা একা সাফল্যের পথে যাত্রা করা এবং কখনই হাল ছেড়ে না দেওয়া ।”

সফল উদ্যোক্তাদের উদাহরনঃ-

স্টিভ জবস

প্রয়াত প্রযুক্তি নেতা
যিনি একটি গ্যারেজে অ্যাপল শুরু করেছিলেন এবং এটি আজকের প্রভাবশালী ট্যাবলেট, স্মার্টফোন এবং কম্পিউটার সংস্থায় পরিণত করেছেন।
জন্ম: 24 ফেব্রুয়ারি 1955
জন্মের স্থান: সান ফ্রান্সিসকো, ক্যালিফোর্নিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
শিল্প: কম্পিউটার প্রযুক্তি, কম্পিউটার বিজ্ঞান
কোম্পানিঃ Apple
প্রভাব: কম্পিউটার এবং মিডিয়া ডিভাইসগুলিতে অগ্রগতি

উইলিয়াম “বিল” গেটস

জন্মের স্থান: সিয়াটল, ওয়াশিংটন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
শিল্প: তথ্য প্রযুক্তি, কম্পিউটার বিজ্ঞান
কোম্পানিঃ Microsoft
প্রভাব: ব্যক্তিগত কম্পিউটার চিরতরে পরিবর্তিত হয়েছে

এলন মাস্ক

জন্ম:- জুন 28, 1971,
জন্ম স্থানঃ- প্রিটোরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা
কোম্পানিঃ Zip2 Corporation, PayPal, SpaceX, Tesla Motors, SolarCity, Hyperloop, OpenAI, Neuralink.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here